fbpx

আপনি জানেন কি বিড়াল এলো কেমন করে

বিড়াল নিয়ে কুসংস্কারের শেষ নেই । মধ্যযুগে প্লেগ যখন মহামারী আকার ধারণ করে তখন মানুষ এজন্য দায়ী করে বিড়ালকে। অনেকে আবার বিড়ালকে চিহ্নিত করে শয়তান এবং ডাইনির সহচর হিসেবে। আঠারো শতকে এতো বিড়াল মারা হয় যে বিড়াল বিলুপ্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। পরবর্তীতে ঊনিশ মতকে শুরু হয় বিড়ালপ্রীত। যিশুর জন্মের দেড় হাজার বছর আগে বিড়ালকে শুভকাজের প্রতিক হিসেবে ধরা হতো। এজন্য তখন বিড়াল মারাও ছিল মারাত্মক অপরাধ। কেউ বিঢ়াল মারলেও তার মমি বানিয়ে রাখা হতো।

মিশরীয়রা খ্রিষ্টপূর্ব প্রায় তিন হাজার বছর পূর্বে আফ্রিকার বুনো বিড়াল পুষে ফসলের গোলার ইদুর তাড়ানোর কাজে ব্যবহার শুরু করে। তারা পোষা বিড়ালকে পাখি শিকারের কাজেও লাগাতো।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, বিড়ালের নাম ‘বিড়াল’ হলো কেন? পণ্ডিতরা বলেন শব্দটি এসেছে ‘বিড়’ থেকে। ‘বিড়’ধাতুর মানে হচ্ছে আক্রোশ, লেখন, বিষ্ঠা । কোনো কারণে এই প্রণিটির মনে আক্রোশ হলে সে মাটি আচড়ায় বা লেখন করে । আর বিষ্ঠা ত্যাগ করলেই প্রাণিটি আল বা মাটি আচড়ে তা ঢেকে দেয় । এজন্যই ‘বিড়’ ধাতুর সঙ্গে ‘আল’ প্রত্যয় যোগ করে প্যণিটির নাম হয়েছে বিড়াল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Avatar Mobile
Main Menu x
X